ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর নারীদের কি করতে হবে?

152 জন দেখেছেন
19 অক্টোবর 2014 "আইন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আরিফুল (6,490 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
17 ডিসেম্বর 2015 উত্তর প্রদান করেছেন মো: মামুনুর রশিদ (5,204 পয়েন্ট)
ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটার সাথে
সাথে নির্ভরযোগ্য এমন কাউকে
জানাতে হবে যে মানসিক
সাহস যোগাতে পারবে। ধষর্ণের
শিকার নারী বা শিশু
তাৎক্ষণিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে
যায়। কাউকে জানালে, তার
সাথে কথা বললে, মানসিক
সান্ত্বনা পেলে মানসিক
বিপর্যয় কাটিয়ে উঠা সম্ভব।
অন্যথায় আত্মহত্যা বা
জীবননাশসহ অন্য যে কোন ধরণের
ঘটনা ঘটে যেতে পারে।
ধর্ষণের ঘটনায় সাক্ষী হিসেবে
কাজে লাগানোর জন্যও ঘটনাটি
কাউকে জানানো উচিত। যে
কাউকেই ধর্ষণ সম্পর্কে জানানো
যায়। সে আত্মীয়, বন্ধু, ডাক্তার
এমনকি পুলিশ অফিসারও হতে
পারে।
ধর্ষণের পর যত তাড়াতাড়ি সম্ভব
মামলা দায়ের করতে হবে। কারণ
ধর্ষণের পর মামলা করতে দেরি
হলে ধর্ষণ প্রমাণ করা বেশ কঠিন
হয়ে পড়ে।
ধর্ষণের শিকার নারী বারবার
গোসল করে নিজেকে পরিস্কার
করতে চায়। ফলে শরীরের
বেশির ভাগ আলামত বা
সাক্ষ্যপ্রমাণ ধুয়ে-মুছে যায়।
সুতরাং যত খারাপই লাগুক
নিজের স্বার্থেই ডাক্তারি
পরীক্ষার আগে গোসল করা
যাবে না।
ধর্ষণের সময় পরনে যে কাপড় ছিল
তা ধোয়া বা পরিস্কার করা
যাবে না। কারণ কাপড়ে অনেক
সময় গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণাদি থাকে।
ওই কাপড় কোনোভাবেই
পলিথিনের ব্যাগে রাখা
যাবে না। কাগজের ব্যাগে বা
কাগজ দিয়ে মুড়িয়ে রাখতে
হবে এবং সেভাবেই এই কাপড়
থানায় নিয়ে যেতে হবে।
ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটার পর যত
তাড়াতাড়ি সম্ভব থানায়
অভিযোগ (এজাহার) দায়ের
করতে হবে। এজাহার যে কেউ
দায়ের করতে পারেন।
যে নারী ধর্ষণের শিকার
হয়েছেন মামলার প্রধান সাক্ষী
হিসেবে তাঁর জবানবন্দী
পুলিশকে গ্রহণ করতে হবে। ধর্ষণের
ঘটনা নিয়ে পুলিশ অফিসারের
অপ্রয়োজনীয় ও অপ্রাসঙ্গিক
প্রশ্নের উত্তর দিতে ধর্ষণের
শিকার নারী বা শিশু বাধ্য নন।
ধর্ষণের পর যত তাড়াতাড়ি সম্ভব
ডাক্তারি পরীক্ষা করানো
অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ৭২ ঘন্টার মধ্যেই
পরীক্ষা করানো জরুরি, কেননা
এরপর আর খুব বেশি সাক্ষ্যপ্রমাণ
থাকে না।

মোঃ মামুনুর রশিদ মিঠু জ্ঞানপিপাসু, ধর্মভীরু, আত্নবিশ্বাসী সাধারন একজন মানুষ। স্বপ্ন তার জীবনে বহুদুর যাবার। প্রথম সোপান রুপে বেছে নিয়েছেন চিকিৎসক হিসেবে মানব সেবার। বই পড়া এবং বিদেশ ভ্রমনে প্রচন্ড আগ্রহ। ইন্টারনেট জগতেও তিনি সুদক্ষ। স্বাস্থ্য সেবামূলক কর্মকান্ডে তার রয়েছে বিস্তৃত পদচারণা। "সুস্বাস্থ্যে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ " গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এগুচ্ছেন। তিনি "বিষ্ময় অ্যানসার" এর সাথে আছেন স্বাস্থ্য সহায়ক এবং সমন্বয়ক হিসাবে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
05 সেপ্টেম্বর 2014 "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আরিফুল (6,490 পয়েন্ট)
1 উত্তর
05 সেপ্টেম্বর 2014 "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আরিফুল (6,490 পয়েন্ট)

153,825 টি প্রশ্ন

202,024 টি উত্তর

38,462 টি মন্তব্য

62,538 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...