মাযহাব মানা ফরয, ওয়াজিব না সুন্নাত? এবং মাযহাব সম্পর্কে কোরআন হাদীস কি বলে?

101 জন দেখেছেন
10 নভেম্বর 2016 "ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রায়হান হোসাইন (-1 পয়েন্ট)
মাযহাব মানা ফরয, ওয়াজিব না সুন্নাত? এবং মাযহাব সম্পর্কে কোরআন হাদীস কি বলে?

1 উত্তর

2 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
10 নভেম্বর 2016 উত্তর প্রদান করেছেন নাইম সিকদার (2,129 পয়েন্ট)

“পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব চতুষ্ঠয় উনাদের মধ্যে যে কোন একটি সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব মানা ও অনুসরণ করা ফরয ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া”-

পেশ করতে পারায় মহান আল্লাহ পাক উনার পবিত্র দরবার শরীফ-এ শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব চতুষ্ঠয় উনাদের মধ্যে যে কোন একটি সম্মানিত ও পবিত্রমাযহাব উনার উপর মউত পর্যন্ত ইস্তিক্বামত থাকা ফরযপূর্ব প্রকাশিতের পরপবিত্র তাফসীর শরীফ উনাদের নির্ভরযোগ্য কিতাব থেকে ‘আত-তাক্বলীদুশ্ শারয়ী তথা শরীয়াত সমর্থিত অনুসরণ’ উনার সমর্থনেপবিত্র আয়াত শরীফ সমূহ উনাদের ছহীহ ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও আহকামপবিত্র কুরআন মাজীদ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, ইজমাউল উম্মাহ ও ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দলীল-আদিল্লাহ মোতাবেক সম্মানিত ইসলামী শরীয়াত উনার যাবতীয় হুকুম-আহকাম মেনে চলার জন্য কারো অনুসরণ করাকে ‘আত-তাকলীদুশ শারয়ী তথা শরীয়াত সমর্থিত অনুসরণ’ বলে। উনাকে ‘তাকলীদুল ইসলাম’, ‘তাকলীদুদ্ দীন’ ও ‘তাকলীদুদ্ দালায়িলিল আরবায়াহ’ অর্থাৎ পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার চারখানা দলীল উনাদের অনুসরণও বলা হয়ে থাকে।নি¤েœ পবিত্র তাফসীর শরীফ উনাদের নির্ভরযোগ্য কিতাব থেকে ‘আত-তাক্বলীদুশ্ শারয়ী তথা শরীয়াত সমর্থিত অনুসরণ’ উনার সমর্থনে পবিত্র আয়াত শরীফ সমূহ উল্লেখ করে উনাদের ছহীহ ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও আহকাম বা বিধি-বিধান আলোচনা করা হলো।

পবিত্র আয়াত শরীফ নম্বর- ২৪

اُولئِكَ الَّذِينَ هَدَى اللهُ فَبِهُدَاهُمُ اقْتَدِهْ قُلْ لَا اَسْاَلُكُمْ عَلَيْهِ اَجْرًا انْ هُوَ الَّا ذِكْرى لِلْعَالَمِينَ (سورة الانعام الشريف ۹۰ الاية الشريفة)

অর্থ: উনারা এমন ছিলেন, যাঁদেরকে মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি পথ প্রদর্শন করেছিলেন। অতএব আপনিও (এখানে মূলত: উম্মাত উদ্দেশ্য) উনাদের পথ অনুসরণ করুন। অর্থাৎ উম্মতদেরকে বলুন তারা যেন উনাদেরকে অনুসরণ করে। আপনি বলে দিন, আমি তোমাদের কাছে এর জন্য কোন প্রতিদান চাই না। এটি সারা বিশ্ববাসীর জন্য উপদেশ বাণী। (পবিত্র সূরাতুল্ আনয়াম শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ নং ৯০)

অত্র পবিত্র আয়াত শরীফ উনার বিশুদ্ধ তাফসীর বা ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ(৪৮৬){اولئك الذين} قصصناهم من النبيين عليهم السلام {هَدَى الله} هداهم الله بالاخلاق الحسنى {فَبِهُدَاهُمُ} فباخلاقهم الحسنى من الصبر والاحتمال والرضا والقناعة وغير ذلك {اقتده قُل} يا محمد صلى الله عليه وسلم لاهل مكة {لاَّ اَسْاَلُكُمْ عَلَيْهِ} على التوحيد والقران {اَجْراً} جعلاً {انْ هُوَ} ما هو يعنى القران {الاَّ ذكرى} عظة {لِلْعَالَمِينَ} الجن والانس. (تنوير المقباس من تفسير ابن عباس رضى الله عنهما المتوفى ৬৮ هجرى سورة الانعام الشريف ۹۰ الاية الشريفة جمعه: محمد بن يعقوب الفيروز آبادى الحنفى الماتريدي رحمة الله عليه المتوفى ۸۱۷ هجرى)অর্থ: (উনারা এমন ছিলেন,) যে সমস্ত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের বিবরণ দিলাম (যাঁদেরকে মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি পথ প্রদর্শন করেছিলেন।) উনাদেরকে মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি উত্তম চরিত্র মুবারক হাদিয়া করেছিলেন। (অতএব আপনিও অর্থাৎ এখানে মূলত: উম্মাত উদ্দেশ্য উনাদের পথ অনুসরণ করুন।) উনাদের উত্তম চরিত্রের গুনাবলী যেমন ধৈর্য্য, সহিঞ্চুতা, সন্তুষ্টি, তাক্বদীরের তুষ্টি ইত্যাদীর অনুসরণ করুন।(আপনি বলে দিন,) হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি মক্কা শরীফ বাসীদেরকে বলে দিন (আমি তোমাদের কাছে এর জন্য চাই না) পবিত্র তাওহীদ ও পবিত্র কুরআন শরীফ উনাদের জন্য (কোন প্রতিদান।) কোন পারিতোষিক। (এটি) পবিত্র কুরআন শরীফ (উপদেশবানী) নছীহতবানী (সারা বিশ্ববাসীর জন্য।) জিন জাতী ও মানুষ জাতীর জন্য। (তানবীরুল মাকবাস মিন তাফসীরি ইবনি আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা ওয়াফাত মুবারক: ৬৮ হিজরী পবিত্র সূরাতুল্ আনয়াম শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ নং ৯০ সংকলনকারী: হযরত মুহাম্মাদ বিন ইয়া’কূব ফীরোজাবাদী হানাফী মাতুরীদী রহমাতুল্লাহি আলাইহি ওয়াফাত: ৮১৭ হিজরী)(৪৮৭)

{فَبِهُدَاهُمُ اقْتَدِه} اى اقتد واتبع، واذا كان هذا امرا للرسول صلى الله عليه وسلم فامته تبع له فيما يشرعه لهم ويأمرهم به. (تفسير القران العظيم اى تفسير ابن كثير سورة الانعام الشريف ۹۰ الاية الشريفة المؤلف: ابو الفداء اسماعيل بن عمر بن كثير القرشى الدمشقى الشافعى الاشعرى رحمة الله عليه الولادة ۷۰۰ هجرى الوفاة ۷۷۸ هجرى)

অর্থ: অতএব আপনিও (এখানে মূলত: উম্মাত উদ্দেশ্য) উনাদের পথ অনুসরণ করুন। অর্থাৎ ইক্তিদা করুন ও ইত্তিবা করুন। পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে যেখানে বাহ্যিকভাবে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নির্দেশ মুবারক করা হয়েছে সেখানে বুঝতে হবে, উম্মত উনাদের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে সম্মানিত শরীয়ত ও আদেশ মুবারক পালন করার জন্য। (তাফসীরুল কুরআনিল আযীম অর্থাৎ তাফসীরে ইবনুল কাছীর পবিত্র সূরাতুল্ আনয়াম শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ নং ৯০ লেখক: হযরত আবুল ফিদা ইসমাঈল বিন উমর বিন কাছীর কুরাশী দামিশকী শাফিয়ী আশয়ারী রহমাতুল্লাহি আলাইহি বিলাদত: ৭০০ হিজরী ওয়াফাত: ৭৭৪ হিজরী)



 এছাড়াও অনেক অনেক হাদিস কুরআনের ইজমা আছে যেখানে মাজাহাব এর যেকোনো একটি মানা ফরজ। তাই এটি ফরজ বলে প্রমানিত।

11 নভেম্বর 2016 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন নাইম সিকদার (2,129 পয়েন্ট)

প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। মাজাহাব আল্লাহ ও তার রাসূল ফরজ করেন নাই। কিন্তু ইজমা এবং ক্কিয়াস মানা ফরজ করেছেন। ইজমা ও ক্কিয়াস শরীফ দ্বারা মাজাহাব ফরজ প্রমানিত তাই এটি ফরজ।  আশা করি বুঝতে পারবেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

163,334 টি প্রশ্ন

213,528 টি উত্তর

42,620 টি মন্তব্য

68,796 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...